Header Ads

Surfe.be - Banner advertising service
  • Breaking News

    নালায় স্কুলছাত্রীর লাশ


    পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলার উত্তর বড়মাছুয়া গ্রামের একটি বাগান থেকে আজ রোববার দুপুরে ঊর্মি আক্তার (১০) নামের এক স্কুলছাত্রীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহত ঊর্মি ‘সরেজমিন পত্রিকা’র মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি উত্তর বড়মাছুয়া গ্রামের জুলফিকার আমিনের মেয়ে। সে মধ্য বড়মাছুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণিতে পড়াশোনা করত।
    পুলিশ ও পরিবার সূত্রে জানা গেছে, সাংবাদিক জুলফিকার আমিন মঠবাড়িয়া পৌর শহরের দ্বিতীয় পক্ষের স্ত্রীকে নিয়ে বসবাস করেন। জুলফিকার আমিনের প্রথম স্ত্রীর সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদের পর প্রথম পক্ষের দুই মেয়ে শর্মি ও ঊর্মি উত্তর বড়মাছুয়া গ্রামে দাদির সঙ্গে বসবাস করত। গত শুক্রবার বিকেল সাড়ে চারটার দিকে ঊর্মি আক্তার এক সহপাঠীর বাড়িতে যাওয়ার জন্য ঘর থেকে বের হয়। পরদিন সে বাড়িতে না ফেরায় তার দাদি নাতিকে খোঁজাখুঁজি করেন। খোঁজাখুঁজির পর না পেয়ে আজ রোববার সকালে ঊর্মির বাবা জুলফিকার আমিন স্থানীয় থানায় নিখোঁজের ঘটনায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। আজ বেলা ১১টার দিকে কয়েকজন নারী উত্তর বড়মাছুয়া গ্রামের জব্বার মোল্লার বাড়ির বাগানের মধ্যে দিয়ে যাওয়ার সময় বাগানের নালার মধ্যে ঊর্মির লাশ দেখতে পান। খবর পেয়ে দুপুরে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে। ঊর্মির গলায় ওড়না দিয়ে ফাঁস লাগানো ছিল। সন্দেহ করা হচ্ছে, ধর্ষণের পর মেয়েটিকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হতে পারে। আজ রোববার বিকেলে পিরোজপুরের পুলিশ সুপার মো. ওয়ালিদ হোসেন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। 

    ঊর্মির বাবা জুলফিকার আমিন বলেন, ‘আমাদের বাড়ি থেকে ৪০০ গজ দূরে একটি বাগানের মধ্যে ঊর্মির লাশ পাওয়া গেছে। সন্দেহ করা হচ্ছে শ্বাসরোধে হত্যার পর লাশ বাগানের নালার মধ্যে ফেলে রাখা হয়।’ 

    মঠবাড়িয়া সার্কেলের জ্যেষ্ঠ সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) কাজী শাহনেওয়াজ বলেন, লাশের ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পাওয়ার পর মৃত্যুর কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় নিহত স্কুলছাত্রীর পরিবারের লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পর মামলা নেওয়া হবে।

    No comments

    Post Top Ad

    Surfe.be - Banner advertising service

    Post Bottom Ad